শ্যামল বাংলাদেশের অন্য নাম লাকি আক্তার
ফকির ইলিয়াস, বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৩


শ্যামল বাংলাদেশের অন্যনাম লাকী আক্তার // ফকির ইলিয়াস
-----------------------------------------
ময়মনসিংহের নেত্রকোণা থেকে যে মুক্তিযোদ্ধা শাহবাগে এসেছেন,
তার স্ত্রী কে ধরে নিয়ে গিয়েছিল একাত্তরের হানাদার বাহিনী।
পাবনা থেকে যে নারী এসেছেন শাহবাগে, তিনি শহীদ জায়া।
সিলেট থেকে অর্থ ধার করে শাহবাগে এসেছেন পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধা
মোখলেস আলী। তার ইচ্ছা - দেখবেন এক টুকরো শ্যামল বাংলাদেশ।
দেখবেন, কীভাবে 'তুই রাজাকার ' ধ্বনিতে ঢাকার আকাশ কাঁপিয়ে
তুলছে লাকী আক্তার।

আমি নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের সমাবেশে দাঁড়িয়ে দেখতে পাচ্ছি
সেইসব দৃশ্য। আর হাত উঁচু করে দিচ্ছি শ্লোগান-
'একাত্তরের হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার।'

আমি জানি, এদেশ শহীদের রক্তে যেদিন ভেসে গিয়েছিল, সেদিন
সেজদারত আমার পিতামহী বলেছিলেন- ' ইয়া আল্লাহ, তুমি
জালেমদের নিঃশেষ করো।'
নদীর মোহনায় দাঁড়িয়ে একজন ঘরহারা পথিক- কেঁদে ছিল
সারা রাত। একটি পতাকার জন্য আমার যুদ্ধরত অগ্রজ
নিশীরাতে মাকে দেখতে এসে বলেছিলেন- ' আমরা জয়ী হবো- মা।'


পা চলছে না। চলবে কি করে। দুপুর গড়িয়ে বিকেল হয়েছে। পেটে কোন দানা-পানি পড়েনি। সেই সাত সকালে নাস্তা খেয়ে স্কুলে যায় তারা। স্কুল শেষেই ছুটে এসেছে শাহবাগ গণজাগরণ চত্বরে।

স্লোগানে স্লোগানে কেঁটে গেছে কয়েক ঘণ্টা।পেটটাই জানিয়ে দিয়েছে চলতে গেলে ফুয়েল চাই। তখনই বাড়ির পথ ধরা। অবসন্ন ক্লান্ত দেহ আর চলতে চায় না। কি আর করা ওই অবস্থায় বাড়ির পথে ছুটে চলা।

হাতে ব্যানার “ মতিঝিল মডেল হাই স্কুল।”

সবারই বয়স ১২/১৩। কিশোর এই বয়সে ক্ষুধা সহ্য করা যায় না। শিশু পার্কের সামনে এসে এলোমেলো ভাবে চলছে ৩০/৩২ জনের দলটি।

যখন সবাই শিশু পার্কের সামনে তখন সামনে সারি থেকে বলছে, রাজাকারের ফাঁসি চাই স্লোগান দে, তাহলে চলার শক্তি পাবি।

আমাদের এই প্রজন্ম বুঝে গেছে রাজাকাররা কত খারাপ ছিল। এই দেশটাই চায় নি তারা। চেয়েছে পাকিস্তান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঠেকাতে লাখ লাখ মানুষ হত্যা, ধর্ষণ ও লুঠতরাজ হেন অপরাধ নেই যা তারা বাদ দেয়নি।

নতুন প্রজন্ম বুঝে গেছে তাদের অপরাধ। তাই তারা দাবি তুলেছে, রাজাকারদের ফাঁসি দিয়ে বাংলাকে কলঙ্কমুক্ত করা হোক।

যে কারণে তারা নাওয়া-খাওয়া ভুলে সামিল হয়েছে গণআন্দোলনে। নিজের ক্ষোভ ও ঘৃণা জানান দিতে।

তাদের চোখে জ্বলছে অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। বলে দিচ্ছে আর কোনো রায় মানি না। হত্যার বদলে ফাঁসি দিতে হবে। অন্যথা মেনে নেব না।