দয়ার শরীর জনাবের
কাজী এনামুল হক, রবিবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১২


কাজী এনামুল হক- লেখালেখি সেই খুলনার কাগজ থেকে। অনলাইন পাক্ষিক কাব্যকুঞ্জের সম্পাদক।কবিতার প্রতি অপরিসীম এক ভালোবাসা।নিয়মিত লিখে চলেছেন, কবিতায় ফুটিয়ে তুলেছেন বর্তমান অসঙ্গতি আর মুক্তিযুদ্ধের কথা।এক সময়ে চাকুরী করতেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে, সেখানে মন বসেনি, কবিতা যে তার ধ্যান-মন-প্রাণ। প্রবাসের অন্তহীন ব্যস্ত জীবনেও তাই কবিতায় খুজে বেড়ান জীবনের চড়াই-উৎরাই এর সামঞ্জস্য। এই দেশ ডট কমের পাঠকদের জন্য কাজী এনামুল হক -এর সাম্প্রতিক কবিতা তুলে ধরা হলো--------------------------------


দয়ার শরীর জনাবের

---- কাজী এনামুল হক

বড় দয়ার শরীর জনাবের, আতরের ঘ্রাণে পাগল-পরাণ রাতের জোনাকী
চকচকে চোখের কামনালিপ্সাদৃষ্টি, বয়সের ভার কাটে সুরমার চিকন টানে।
তাবৎ বিশ্বের দুঃখী-হতদরিদ্রের কুশলাদির যোগ-বিয়োগ ফতুয়ার পকেটে
গন্ডায় গন্ডায় কুমারী-চর্বিনুন হজম করেও থামেনি বেহায়া পৌরুষপ্রতাপ।

পান চিবাতে চিবাতে খলহাস্যে বিচারের রায়ে করে পরোক্ষ ফতোয়াবাজী
স্বার্থের শিকড় প্রোথিত গহীন অতলে, প্রভাবশালী মহলে বিশাল ক্ষমতাধর,
সকাল বিকাল হয় কথার বদল, রাজ্যময় রাতারাতি হয়ে যায় সুপরিচিত
পিছনে কে তাকায় কবে; ভাবে বৈধতা যদি পায় রকেটগতি সামনের দিকে।

গদাধর মাঝির পোয়াতী মেয়ে কেঁদে কেঁদে বলেছিল, ‘আমারে ছাইড়া দেও
তোমার পায়ে পড়ি, পেটে আমার সাত মাসের বাচ্চা আছে, এমন সর্ব্বনাশ
ভগবান সইবে না।’ বিবেক গলেনি জনাবের পাকসেনাদের হাতে তুলে দেয়
রাতের অন্ধকারে। বুটের লাথিতে রক্তারক্তি, অকাল গর্ভ্‌পাতে নষ্ট সন্তান।

বেঁচে আছে বীরাঙ্গনা আজও ঘৃণায় করুনায় দেশের সেইসব শত্রুর কাফেলায়
লাল-সবুজে তার স্মৃতিমাখা সেই রক্ত-লজ্জা পত পত ওড়ে চোখের পাতায়।
===== ===== ====== ==
২২-১১-২০১২, বৃহস্পতিবার