শীগ্রই আসছে ব্রেন মেমোরি ইমপ্ল্যান্টঃ ডারপা রিসার্চ টিম জানালো
সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ , শুক্রবার, জুন ১৩, ২০১৪


শীগ্রই আসছে ব্রেন মেমোরি ইমপ্ল্যান্টঃ ডারপা রিসার্চ টিম জানালো

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ- যুক্তরাজ্য থেকে

আর হয়তো খুব দূরে নয়, একজন আহত যোদ্ধার ব্রেনের মেমোরি প্রতিস্থাপন করতে সক্ষম হবে আমেরিকা। এমনটাই জানালো আমেরিকার ডিফেন্স এডভান্স রিসার্চ প্রজেক্ট এজেন্সি-ডারপা।

আমেরিকার খুবই অতি গোপনীয় মিলিটারি রিসার্চ দল মানব মস্তিষ্কে ব্রেন মেমোরি প্রতিস্থাপনের এই সেনসিটিভ কাজ নিয়ে গবেষণা প্রায় উন্মোচিত হওয়ার পর্যায়ে বলে জানা গেছে।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এই ডিফেন্স রিসার্চ দলকে ১০০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান দেন যাতে মানব ব্রেন নিয়ে গভীর অনুসন্ধান ও রিসার্চ কার্যক্রম পরিচালনা করে এ নিয়ে যুগান্তকারী এক সাফল্য নিয়ে আসে, ডারপা চারবছরের গবেষণায় জানালো তারা হয়তো খুব শীগ্রই মানব ব্রেন ইমপ্ল্যান্ট করতে পারবে। তাদের এই টেকনোলজি বিশেষ যুদ্ধে আহত, পঙ্গু ও অকেজো যে সব সৈন্যরা রয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে তাদের ব্রেন ইমপ্ল্যান্ট করে সচল করা যাবে, যা এক যুগান্তকারী সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে।

ডারপা বলছে, আমেরিকার অনেক লোক আছেন আলজাইমার নামক রোগে স্মৃতি একেবারেই বিস্মৃত হয়ে আছেন তারা সহ প্রায় তিনশত হাজারের মতো আমেরিকান সৈন্য বিগত আফগান ও ইরাক যুদ্ধে আহত হয়ে আছেন, ব্রেন ইঞ্জুরিতে ভুগছেন, তাদের মস্তিষ্কে এই ব্রেন ইমপ্ল্যান্ট করে স্মৃতি শক্তি ফিরিয়ে আনা যাবে।

গত কয়েক সপ্তাহ আগে ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাসে ব্রেনের উপর সেমিনারে এই ডারপা প্রোগ্রামের ম্যানেজার জাস্টিন স্যানচেজ জানিয়েছেন, তারা এমন এক আবিষ্কারের দ্বারপ্রান্তে, যেখানে যারা ডিউটি পালন করতে গিয়ে স্মৃতি শক্তি হারিয়েছেন কিংবা অসুস্থতার জন্য স্মৃতি শক্তি বিকল হয়ে গেছে, আমরা তাদের স্মৃতি শক্তি রিস্টোর করতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, আমরা নিউরোপ্রোস্টেটিক ডিভাইস ডেভেলপ করেছি, যাতে ব্রেনের হিপোক্যাম্পাসের সাথে সরাসরি কানেকশন স্থাপন করা যাবে, এবং এর ফলে প্রাথমিক স্টেজে স্মৃতি ভ্রমের ঘোষিত এই স্মৃতি শক্তি আমরা রিস্টোর করতে সক্ষম হবো।

তার বক্তব্যে জানা যায়, ঘোষিত এই প্রাথমিক মেমোরি লসের ব্যাপারে এর কারণ নির্ণয়ের প্রতিকার নিয়ে এখন পর্যন্ত বিশ্বে কোন পেপার বা তথ্য আবিষ্কৃত হয়নি, যাতে তারা তাদের হারানো স্মৃতিশক্তি ফিরে পেতে পারেন।

এখন পর্যন্ত বিশ্বের মেডিক্যাল এক্সপার্ট ও রিসার্চাররা কেবলমাত্র পার্কিনসন ডিজিজ ও এপিল্যাপটিকস আর আলজাইমার রোগের ক্ষেত্রে রিডুইস বা উপসর্গ অল্প বিস্তর বৃদ্ধি না পেতে কিংবা মেডিক্যাল প্রসেসের মাধ্যমে কেবলমাত্র অল্প বিস্তর আরামদায়ক সাফল্য পরিলক্ষিত হয় এবং আলজাইমারের ক্ষেত্রে কেবলমাত্র যা ডিপ ব্রেন ষ্টিমুলেশনের কথাই আমরা জানি। কিন্তু তাতে এই সব রোগের উপশম কখনো হয়না, যা কন্টিনিউয়াস এক মেডিক্যাল প্রসেসের মধ্য দিয়ে রোগীকে লাইফ লং যেতে হয় অবশেষে স্মৃতি ভ্রমে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

প্রোগ্রাম ম্যানেজারের মাধ্যমে জানা গেলো কার্ডিয়াক পেস মেকার ডিভাইস এবং ইলেক্ট্রো ডিভাইসের দ্বারাই তারা ব্রেন ইমপ্ল্যান্ট ডিভাইস আবিষ্কারের অনুপ্রাণিত হন। তবে এই ডিভাইস সকল রোগীর মেমোরি ফিরিয়ে আনতে কার্যকর কিনা তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি, এ নিয়ে কাজ চলছে।

ওয়েক ফরেস্ট ইউনিভার্সিটির প্রফেসর রবার্ট হ্যাম্পসন বলেন, মেমোরি হলো একটা প্যাটার্ন এবং কানেকশনের নাম। আমাদের কাছে প্রোস্টেটিক ডিভাইস যা ডেভেলপ করেছি, তা আমরা মেমোরি ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে স্পেসিফিক প্যাটার্ন কানেকশন ডেলিভারি করতে সক্ষম বলে প্রফেসর হাম্পসন জানালেন, যা হলো ডারপার সুনির্দিষ্ট এই প্ল্যান।

হ্যাম্পসন বানর ও প্রাণীদেহের উপর গবেষণা করে দেখেছেন, মস্তিষ্কের এই স্মৃতির প্রসেস-আলোর ও আগুনের সংস্পর্শে বিভিন্ন ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া করে, লাল ও নীল রঙ অথবা খাদ্যের উপর ছবি প্রক্ষেপণ একই নলেজের ইকুপম্যান্টের দ্বারা করে তিনি ফললাভ করেছেন।হাম্পসন এবং তার দল প্রাণীদের উপর এই শর্ট-টার্ম ব্রেন রিকভারী তাদের উদ্ভাবিত এই ডিভাইস প্রোস্টেটিক্স প্যাটার্ন কানেকশন দ্বারা সম্ভব ।

হাম্পসনের মতে, মানব ব্রেনের মেমোরি রিস্টোরের আগে বিজ্ঞানীকে জানতে হবে, ব্রেনের প্রিসাইস প্যাটার্ন অব মেমোরি। কেবলমাত্র সিম্পল ব্রেন ওয়ার্ক দ্বারা ব্রেন ইঞ্জুরি রিকভারি করতে নতুবা সাইন্টিস্টকে সুনির্দিষ্ট প্যাটার্নের বিপরীতে সাধারণ প্রসেসে সক্ষম কিনা সেটা ইনভেস্টিগেশন করে দেখতে হবে ।

হাম্পসন আরো জানালেন, স্মৃতি ভ্রষ্ট মানুষ বা ব্রেন ইঞ্জুরির আহত সৈনিকের ব্রেন আমরা রিকভারি বা কাছাকাছি স্মৃতি ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি নতুন ব্রেনের কাজ করে দেয়াই লক্ষ্য।

নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির ল্যাঙ্গোন মেডিক্যাল সেন্টারের মেডিক্যাল এথিসিস্ট স্যার কাপলান অবশ্য এ নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলছেন, এটা ঠিক আপনার ব্রেন কাজ করছেনা মানেই আপনি একেবারেই বোকা। কিন্তু নয়া ব্রেনের মাধ্যমে আপনার হারানো স্মৃতি শক্তি পুনরায় ফিরিয়ে আনার সাথে সাথে নতুন মেমরি ইমপ্ল্যান্টের ফলে সম্পূর্ণ নতুন এক এনভায়রনম্যান্ট আপনার মাঝে কাজ করবে, যা কতোটুকু ইথিক্যাল সেটা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন। আর এতে তিনি বলছেন একজন স্মৃতি ভ্রম লোক স্মৃতি ফিরে পেয়ে নিজেকে হয়তো হারিয়ে ফেলারও রিস্ক যেমন রয়েছে, তেমনি নতুন ধরনের এক রিস্ক সৃষ্টি হওয়ারও সুযোগ রয়েছে।

ডারপার ওয়েব সাইটে বলা হয়েছে, এই প্রোগ্রামের আবিষ্কার বিজ্ঞানের জন্য নতুন এক দ্বারপ্রান্তে উপনীত হওয়া। ডারপার পর্যায়ক্রমে এই প্রোগ্রাম নিয়ে বিশ্বের সেরা স্কলারদের সাথে কনসাল্ট করছে এর এথিক্যাল, লজিক্যাল এবং সোশ্যাল ইস্যুস নিয়ে।

ডারপার প্রোগ্রাম ম্যানেজার স্যানচেজ জানালেন তাদের এই প্রোগ্রামের আনুষ্ঠানিক সফলতার ঘোষণা আগামী কয়েকমাসের মধ্যে আসছে। তিনি জানালেন আমাদের দেশে অত্যন্ত দক্ষ এবং সেরা সাইন্টিস্ট রয়েছেন, যারা এই প্রোগ্রামের সাথে কাজ করছেন, তাদের সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে বিজ্ঞানের এই নয়া আবিষ্কার শীগ্রই আসছে, সেই পর্যন্ত অপেক্ষা এবং নতুন এক এক্সাইটম্যান্টের সংবাদের ঘোষণার জন্যে কিছু সময় চাইলেন স্যানচেজ।

(সৌদি গেজেট, ডারপার ওয়েবসাইট এবং এপি অবলম্বনে)

salim932@googlemail.com
13th June 2014, London