বিদেশে বসবাসরত আশরাফুজ্জামান ও মঈনুদ্দিনের বিচারের আদেশ
লন্ডন-এইদেশ সংগ্রহ , সোমবার, মে ২৭, ২০১৩


বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের লক্ষ্যে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল চৌধুরী মুঈনুদ্দীন ও আশরাফুজ্জামান খানের অনুপস্থিতিতে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিচার শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন।
বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ সোমবার এই আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের অভিযোগ, ১৯৭১ সালের ডিসেম্বর মাসে আলবদর বাহিনী বুদ্ধিজীবীদের পাইকারি হত্যাকান্ডের নীলনকশা বাস্তবায়ন করে।

মি. মুঈনুদ্দীন ছিলেন আলবদর বাহিনীর অপারেশনের প্রধান এবং মি. খান ছিলেন এই বাহিনীর ‘প্রধান ঘাতক’।

সোমবার ট্রাইব্যুনালের আদেশে বলা হয়, চৌধুরী মুঈনুদ্দীন ও আশরাফুজ্জামান খানকে আদালতে উপস্থিত হওয়ার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ১০ দিনের মধ্যে আত্মপক্ষ সমর্থন করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তাঁরা দুজনেই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উপস্থিত হননি।

পুলিশের প্ররতিবেদনেও দুজনকেই পলাতক দেখানো হয়েছে। তাই আন্তর্জাতিক (ট্রাইব্যুনালস) আইন ১৯৭৩ মতে এদের অনুপস্থিতিতেই বিচারকাজ শুরুর নির্দেশ দেওয়া যায়।

একই সঙ্গে আদালত আশরাফুজ্জামান খান ও চৌধুরী মুঈনুদ্দীনের পক্ষে আইনি লড়াই চালানোর জন্য দুজন আইনজীবীকে নিয়োগ করে। খবর বিবিসি।

উল্লেখ্য অভিযুক্ত এই দুইজন লন্ডনের বাংলাদেশী কমিউনিটিতে সক্রিয়, নানান অনুষ্ঠানে ও ইসলামের নামে চ্যারিটি অনুষ্ঠানের লাইভ প্রোগ্রামে দেখা যায়, ইষ্ট লন্ডন মসজিদে নিয়ামকের ভুমিকায় অবতীর্ণ সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত।লন্ডনে জামায়াতে ইসলামী ও দাওয়াতুল ইসলামী ইউকে আই আর এর অন্যতম সংগঠক।একটি কমিউনিটি টিভি চ্যানেলে তাদেরকে প্রায়ই দেখা যায়।দুজনই এখন লন্ডনের বাসিন্দা এবং ব্রিটেনের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন বলে শুনা যায়।