১২ বছর বয়সী তাসীনের লিভস ইন লন্ডন ২০১২ প্রকাশিত
জুয়েল রাজ , রবিবার, মে ২৬, ২০১৩


মাত্র ১২ বছর বয়সে প্রাকশিত হলো ব্রিটিশ বাংলাদেশি বালক তাসিন খান এর গল্পের বই। ১৯ শে মে রবিবার ক্যামডেন এর ইউরো তান্দুরিতে অনুষ্ঠিত হয়’’ লিভস ইন লন্ডন ২০১২’’ মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান। ঋষি মাডলানির পরিচালনায় এই মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় এম পি ফার্ক ডবসন, ক্যামডেন কাউন্সিলের মেয়য় জানক্যান সিম্পন, কাউন্সিলর সারাহ হাওয়ার্ড, কাউন্সিলর নাসিম আলী, রোজ পল ,বইয়ের লেখক তাসিনের মা কাউন্সিলর সমতা খাতুন সহ স্থানীয় গন্য মান্য রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ । উপস্থিত অতিথিগণ বক্তব্যে বলেন, তাসিন খান এর এই অসাধরন কৃতিত্ব শুধু সে ও তার মা বাবা কেই গর্বিত করে নি। ক্যামডেন কাউন্সিলের জন্যই তাসিন গর্বের প্রতীক । আমাদের শিশুদের কাছে এক প্রেরনার নাম বলে উল্লেখ করেন। এই বই থেকে সংগৃহীত অর্থ শিশুদের নিয়ে কাজ করা সংগঠন স্কিন এন্ড হেয়ার্ড এ দান করা হবে বলে জানানো হয়। উল্লেখ্য তাসিন ১০ বছর বয়স থেকে সে বইটি লেখা শুরু করে। ‘’LIVES IN LONDON 2012 AND VARIETY OF OTHER SHORT STORIES’’ বইটি মূলত দাতব্য প্রতিষ্ঠান সিন ও হেয়ার্ডকে সহায়তা করার জন্য প্রকাশ করা হয়েছে। বইটির গল্প ও নাটক হাস্যরসাত্মক রয়েছে দৈনন্দিন জীবনের ও গল্প । এতে ১০নং ডাউনিং স্ট্রিটে বসবাসরত তেলাপোকা, প্রধানমন্ত্রী ও তার বুদ্ধিদৃপ্ত, কল্পনাপ্রসূত ও হাস্যরসাত্মকের মাধ্যমে ক্যামডেনের বিভিন্ন শ্রেণীর নাগরিকদের মধ্যে সমন্বয় সাধনের গল্প বলা হয়েছে। ছোট গল্পের পাশাপাশি রয়েছে ছোট নাটক। তাসিন আগামী দিনের শিশুদের জন্য এক আলোকিত পৃথিবীর স্বপ্ন রচনা করেছে। খুবই সাবলীল ভাবে তাসিন গল্পের মাঝেই বলে গেছে মানুষের আবাসন সমস্যার কথা। প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তাসিন তারপ্রকাশিত বইয়ের প্রথম গল্প ‘’আমি ও আমার সমাজ’’ নামক ছোট গল্পটি অতিথিদের পড়ে শুনায়। স্থানীয় এম পি গল্প টি শুনে বলেন তাসিন এর শিশু মানসে ও আমাদের আবাসন সমস্যা নিয়ে যে উদ্বেগ,আমাদের তা ভাবতে হবে। তাসিন মনন ও সৃষ্টিশীলতা দিয়ে তার লেখায় আরও উজ্জ্বল করবে বাঙালির মুখ। ইতিমধ্যে সে তার দ্বিতীয় বই এর জন্য লেখা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।
তাসিন খাঁন বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী বানিয়াচঙ্গের কৃতি সন্তান, সাবেক মন্ত্রী ও সাংবাদিক সিরাজুল হোসেন খাঁনের নাতি। তার পিতা সাজ্জাদ হোসেন খাঁন একজন সফল ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী। মা সমতা খাতুন ক্যামডেন বারা অব কাউন্সিলের একজন কাউন্সিলর। তাসিন তার বইয়ে নানী আয়মনা খাতুনকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ দিয়েছে। যিনি সবসময় তাকে লেখার জন্য উৎসাহ দিয়েছেন। কিন্তু বইটি প্রকাশিত হওয়ার পূর্বেই তার নানী গত ১০ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। তাসিনের বইটি অনলাইনে ও পাওয়া যাচ্ছে আগ্রহী পাঠকরা www.amazon.com.uk/lives-london-variety-short-stories/dp/0957390106 লিংকে গিয়ে বইটি পড়তে পারবেন।

আগামী দিনের আলোকিত পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ কে উজ্জ্বল করবে তাসিন এর লেখনী শুভ হউক এই বিস্ময় বালকের পথচলা।