জমজমাট আয়োজনের মধ্য দিয়ে জুরিখে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত
লন্ডন-এইদেশ সংগ্রহ , শুক্রবার, মে ২৪, ২০১৩


প্রতি বছরের মত এবারও সুইজারল্যান্ডের জুরিখে বসবাসরত বাংলাদেশীরা মেতে উঠেছিল বাংলা নববর্ষ বরণ অনুষ্ঠানে।
জুরিখে ১৯ তম এই বাংলা নববর্ষ আয়োজনে মাতিয়ে তুলতে বাংলাদেশ থেকে এসেছিল কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা, ফেরদৌস ওয়াহিদ, হাবিব ওয়াহিদ, গায়ক আশরাফ বাবু, পলাশ ও স্থানীয় সংগীত শিল্পী রত্না, করবী, কবীনুর টিসু প্রমুখ। জুরিখ শহরের কংগ্রেস হাউসে আয়োজিত এই অনুষ্ঠান পুরো ইউরোপ থেকে বাংলাদেশীদের অন্যতম মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল।

বাংলাদেশ সোসাইটি সুইজারল্যান্ড আয়োজিত এ বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে আগত উপস্থিতির পোষাক এবং সাজসজ্জায় খানিকটা সময়ের জন্যও মনে হয়েছিল যেন মাতৃভূমিত বাংলাদেশ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি এবং সাভার রানা প্লাজায় নিহতদের জন্য এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

জুরিখের অন্যতম সৌন্দর্যমন্ডিত স্থান বেলভিউ লেকের পাড়ে বৈশাখী র‌্যালীতে স্বত্বস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন বিপুল সংখ্যক প্রবাসী।

বাংলাদেশ সোসাইটি সুইজারল্যান্ড এর সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, প্রতি বছরের মতো এবারের আয়োজনে বিলেতে বাঙালীয়ানার প্রতিচ্ছবি ফুটে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে। অন্তত একটি দিন জুরিখবাসী মেতে উঠেছিল বাঙালি সংস্কৃতিতে।

বাংলাদেশ সোসাইটি সুইজারল্যান্ড এর সাধারণ সম্পাদক বাকী উল্লাহ রিপন ইউকেবিডিনিউজকে বলেন, এবারের আয়োজনে বিপুল সংখ্যক প্রবাসীর উপস্তিতি প্রমাণ করে আমরা প্রবাসে থেকে বাংলা সংস্কৃতিকে ভুলে যায় নি। আগামীতে আরো বৃহত্তর পরিসরে এই বাংলা নববর্ষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

বর্ণাঢ্য এই বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আল আমিন সিকদার, মইনুল হক অপু, ওয়াহিদ গাজী ওবায়দুর রহমান মিঠু, জিকু বাদল, ইকবাল হোসেন, আমজাদ হোসেন প্রমুখ।

সকাল ১১ টা থেকে শুরু হয়ে দিনব্যাপী এই আয়োজনে সঙ্গীতানুষ্ঠানের পাশাপাশি ছিল চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতা, নৃত্যানুষ্টান, কবিতা আবৃত্তি।